স্ট্যাটাস-উক্তি

১৭ মার্চ বঙ্গবন্ধুর জন্মদিন উপলক্ষে ভাষণ ও বক্তৃতা

আসসালামু আলাইকুম, আশাকরি ভালো আছেন। আপনি যদি ১৭ই মার্চ বঙ্গবন্ধুর জন্মদিন উপলক্ষে ভাষণ বা বক্তিতা খুজে থাকেন তাহলে বাংলাফ ডটকম এর আজকের এই পোস্টটি আপনার জন্য।

কেননা আজ এই পোস্টটিতে আমি আপনাদের সাথে ১৭ মার্চের সেরা ভাষণ এবং বক্তৃতাগুলো আপনার সাথে তুলে ধরবো।

১৭ মার্চ আমাদের জন্য বিশেষ একটি দিন কারণ এই দিনে বাংলাদেশ স্বাধীন করার নায়ক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান জন্মগ্রহণ করেছিলেন।

এই দিনে বাংলাদেশের প্রতিটি জায়গায় বঙ্গবন্ধুর জন্মদিন উপলক্ষে জাতীয় শিশু দিবস পালিত হয়। তাই যদি এই দিনে সবার সামনে আপনার বক্তব্য দিতে ইচ্ছুক হন তাহলে এই পোস্টের ভাষণ ও বক্তৃতাগুলো দেখে নিতে পারেন।

১৭ মার্চ বঙ্গবন্ধুর জন্মদিন উপলক্ষে ভাষণ

বঙ্গবন্ধুর পাশে ১৭ মার্চ বঙ্গবন্ধুর জন্মদিন উপলক্ষে ভাষণ লেখা
১৭ মার্চ বঙ্গবন্ধুর জন্মদিন উপলক্ষে ভাষণ

আজকে আয়োজিত ১৭ ই মার্চ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এর জন্মবার্ষিকী ও জাতীয় শিশু দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভায় উপস্থিত সবাইকে জানাই আন্তরিক শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন ও সালাম (আসসালামু আলাইকুম)।

আরও দেখুনঃ ২৬ শে মার্চ এর শুভেচ্ছা স্ট্যাটাস, উক্তি, কবিতা

আজকের এই দিনে আমাদের সবার প্রিয় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ১৯২০ সালে টুঙ্গিপাড়াই জন্মগ্রহণ করেছিলেন। তিনি বাংলাদেশের রাজনৈতিক প্রেক্ষাপট সহ ১৯৭১ সালের মুক্তিযুদ্ধে বাংলার মানুষকে সাহস যুগিয়ে পাকিস্তান হানাদার বাহিনীর বিরুদ্ধে যুদ্ধ করার শক্তি দিয়েছে। আজ যদি তিনি বেঁচে থাকতেন তাহলে আজকের এই দিন আরও রঙিন হতো।

তিনি তার ব্যক্তি জীবনে সব সময় চেষ্টা করেছেন গরিব মানুষকে সাহায্য করার ও দেশের জন্য সব সময় মঙ্গল কিছু করার। কিন্তু কিছু দুষ্কৃতিকারীরা এই বাংলার ভালো কিছু মেনে নিতে পারেনি তাই তাকে নিঃসংশভাবে ১৯৭৫ সালের ১৫ই আগস্ট হত্যা করেছিল। ধিক্কার জানাই সেই সকল আক্রমণকারী ব্যক্তিদের প্রতি।

See also  জন্মদিনের শুভেচ্ছা স্ট্যাটাস ভাই ফানি

আমাদের সবার উচিত বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এর নীতি ও নৈতিকতা ও তার দেখানো পথে দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়া। তাই আজকের এই আলোচনা সভায় আমরা তার জন্য সবাই দোয়া করছি যাতে আল্লাহ তাকে বেহেশত নসিব করেন।

আজকের আলোচনা সভায় আমি আমার বক্তব্য দীর্ঘ করবো না, সবাইকে আবারো বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মদিনের শুভেচ্ছা জানিয়ে আমার বক্তব্য শেষ করছি ‘জয় বাংলা জয় বঙ্গবন্ধু।

১৭ মার্চ বঙ্গবন্ধুর জন্মদিন উপলক্ষে বক্তৃতা

বঙ্গবন্ধুর পাশে ১৭ মার্চ বঙ্গবন্ধুর জন্মদিন উপলক্ষে বক্তৃতা লেখা
১৭ মার্চ বঙ্গবন্ধুর জন্মদিন উপলক্ষে বক্তৃতা

আজকের এই দিনটি আমাদের সকলের জন্য একটি বিশেষ দিন, কারণ আমরা এই দিনে একত্রিত হয়ে আমাদের বাংগালী জাতির অন্যতম শ্রেষ্ঠ নেতা শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মদিন উদযাপন করি।

আমরা যখন তার জীবন ও তার কাজ গুলোকে স্মরণ করি, তখন আমাদের দেশের জন্য তিনি যে ত্যাগ স্বীকার করেছেন এবং একটি সমৃদ্ধ, গণতান্ত্রিক ও স্বাধীন বাংলাদেশের জন্য তাঁর স্বপ্নের কথা স্মরণ হয়ে যায়।

শেখ মুজিবুর রহমান শুধু একজন রাজনৈতিক নেতা ছিলেন না; তিনি ছিলেন একজন স্বপ্নদ্রষ্টা , একজন বিপ্লবী এবং আমাদের জাতির পিতা। তিনি আমাদের স্বাধীনতার জন্য তার সমগ্র জীবন উৎসর্গ করেছিলেন, এবং তার নেতৃত্বে এবং সংকল্প বাংলাদেশ এবং সারা বিশ্বের লক্ষ লক্ষ মানুষকে অনুপ্রাণিত করেছিল।

আজ আমরা যখন তাঁর জন্মদিন উদযাপন করছি, তখন আমাদের এই বাংগালী জাতিকে স্বাধীন করার জন্য জন্য তিনি যে সংগ্রাম ও ত্যাগ স্বীকার করেছিলেন তা আমাদের অবশ্যই স্মরণ করতে হবে।

তিনি অন্যায়ের বিরুদ্ধে যে সাহস দেখিয়েছিলেন এবং তার লক্ষ্য অর্জনের জন্য যে দৃঢ় সংকল্প করেছিলেন তা আমাদের অবশ্যই মনে রাখতে হবে।

কিন্তু আমাদের জাতির জন্য শেখ মুজিবুর রহমানের অবদান শুধু মাত্র এই দেশকে স্বাধীন করার মাধ্যমে শেষ হয়নি। তিনি আমাদের দেশের ভবিষ্যত গঠনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছিলেন এবং তার মেয়ে জননেত্রী শেখ হাসিনা আজও আমাদের অনুপ্রাণিত করে চলেছেন।

See also  সিলেটি ভাষায় বন্ধুর জন্মদিনের শুভেচ্ছা স্ট্যাটাস দেখুন

তিনি এমন একটি সোনার বাংলাদেশের স্বপ্ন দেখেছিলেন যেখানে প্রতিটি নাগরিকের শিক্ষা, স্বাস্থ্যসেবা এবং সামাজিক কল্যাণের সুযোগ থাকবে এবং সেই স্বপ্নকে বাস্তবে রূপ দিতে তিনি অক্লান্ত পরিশ্রম করেছেন।

তার নেতৃত্বে বাংলাদেশের শিক্ষা, স্বাস্থ্যসেবা এবং অবকাঠামোগত উন্নয়নের ক্ষেত্রে উল্লেখযোগ্য উন্নতি হয়েছে। তিনি বিশ্বাস করতেন যে একটি জাতির প্রকৃত সম্পদ তার জনগণের মধ্যে রয়েছে এবং তিনি তাদের মঙ্গল ও উন্নতির জন্য বিনিয়োগ করেছিলেন।

তিনি নারীর অধিকার এবং ক্ষমতায়নের কারণকে প্রতিষ্ঠা করেছিলেন এবং দারিদ্র্য ও অসমতা দূর করতে কাজ করেছিলেন।

আমরা যেমন তাঁর জীবন ও উত্তরাধিকারকে স্মরণ করি, তেমনি তিনি যে আদর্শের জন্য দাঁড়িয়েছিলেন সেই আদর্শের প্রতিও আমাদের নিজেদেরকে পুনর্নিবেদন করতে হবে।

আমাদের অবশ্যই এমন একটি বাংলাদেশ গড়তে সচেষ্ট হতে হবে যেখানে লিঙ্গ, ধর্ম বা সামাজিক অবস্থান নির্বিশেষে প্রত্যেক নাগরিকের সমান অধিকার ও সুযোগ থাকবে।

আমাদের অবশ্যই এমন একটি সমাজ তৈরির লক্ষ্যে কাজ করতে হবে যেখানে কোনো বৈষম্য বা নিপীড়ন থাকবে না এবং যেখানে প্রত্যেকের সফল হওয়ার সুযোগ রয়েছে।

শেখ মুজিবুর রহমানকে সম্মান জানানোর সর্বোত্তম উপায় হল তার আদর্শে বেঁচে থাকা এবং তিনি যে যাত্রা শুরু করেছিলেন তা অব্যাহত রাখা।

সমৃদ্ধ, গণতান্ত্রিক ও স্বাধীন বাংলাদেশ গড়তে আমাদের অবশ্যই অক্লান্ত পরিশ্রম করতে হবে। আমাদের অবশ্যই শিক্ষা, স্বাস্থ্যসেবা এবং অবকাঠামোতে বিনিয়োগ চালিয়ে যেতে হবে এবং নিশ্চিত করতে হবে যে প্রতিটি নাগরিকের জীবনের মৌলিক প্রয়োজনীয়তাগুলিতে আধীকার দেওয়া হয়েছে।

এই বিশেষ দিনে, আসুন আমরা শেখ মুজিবুর রহমান এবং আমাদের স্বাধীনতার জন্য জীবন উৎসর্গকারী সমস্ত মুক্তিযোদ্ধাদের স্মরণ করি।

আসুন আমরা কখনই তাদের ত্যাগের কথা ভুলে না যাই, এবং আমাদের কে সর্বদা মনে রাখতে হবে যে তাদের কৃতজ্ঞতার ঋণ এমন, যা কখনও শোধ করা যায় না।

আজ শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মদিন উদযাপন করার সময়, আসুন আমরা একটি উন্নত বাংলাদেশ গড়ার প্রতিশ্রুতি করি। তার একটি সমৃদ্ধ, গণতান্ত্রিক ও স্বাধীন বাংলাদেশের স্বপ্ন বাস্তবায়নে আসুন আমরা জাতি হিসেবে একসঙ্গে কাজ করি।

See also  ১৭ মার্চ বঙ্গবন্ধুর জন্মদিনের শুভেচ্ছা স্ট্যাটাস, উক্তি ও কবিতা

শুভ জন্মদিন, শেখ মুজিবুর রহমান!
বাংলাদেশ দীর্ঘজীবী হোক!
জয় বাংলা, জয় বঙ্গবন্ধ।

এছাড়াও আরও দেখুনঃ ১৭ মার্চ বঙ্গবন্ধুর জন্মদিনের শুভেচ্ছা স্ট্যাটাস, উক্তি ও কবিতা

১৭ মার্চ সম্পর্কিত প্রশ্নের উত্তর

১৭ মার্চ কি দিবস?
১৭ই মার্চ বাংলার জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর জন্মদিন। এই দিন জাতীয় শিশু দিবস হিসেবে পালিত হয়।

বঙ্গবন্ধুর জন্মদিন কত সালে?
বাঙালির জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ১৯২০ সালে জন্মগ্রহন করেন।

১৭ মার্চ ২০২৩ বঙ্গবন্ধুর কত তম জন্মদিন?
২০২৩ সালের ১৭ মার্চ বঙ্গবন্ধুর ১০৩ তম জন্মদিন। এই দিনে বাংলাদেশের সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এর ১০৩তম জন্মদিন পালন করা হবে।

১৯২০ সালের ১৭ মার্চ কি বার ছিল?
বাঙালির জাতির জনক, বাঙালির বন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ১৯২০ সালের ১৭ মার্চ জন্মগ্রহন করেন। আর এই দিনটি ছিলো বুধবার।

আমার মতামত

আজকের এই পোস্টটিতে আমি যেই ভাষণ এবং বক্তৃতাগুলো আপনার সাথে শেয়ার করেছি সেগুলো প্রথমে কাগজে লিখে এরপর ভাষণ বা বক্তৃতা দেওয়ার অনুরোধ রইলো।

এই পোস্টের বক্তৃতা ও ভাষণগুলো আপনার কেমন লেগেছে তা নিচে কমেন্ট করে আমাদের জানাতে পারেন।

আর এই পোস্টটি আপনার বন্ধুদের কাছে শেয়ার করে দিন যাতে তারাও ১৭ মার্চ এ বক্তব্য দিতে পারে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button